1. admin@newswatchbd.com : admin :
শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ০৪:৪৪ পূর্বাহ্ন

খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশ লাইন্সে গ্রান্ড কল্যাণ সভা অনুষ্ঠিত

খুলনা প্রতিনিধি
  • প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ১০ অক্টোবর, ২০২৩

 

আজ (১০ অক্টোবর) সকালে কেএমপি’র পুলিশ কমিশনার মোঃ মোজাম্মেল হক বিপিএম (বার) পিপিএম’র সভাপতিত্বে বয়রাস্থ পুলিশ লাইন্সের মাল্টিপারপাস হলে গ্রান্ড কল্যাণ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

গ্রান্ড কল্যাণ সভার শুরুতে পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত ও শ্রীমদভগবদগীতা থেকে পাঠের মধ্য দিয়ে শরৎ এর স্নিগ্দ সকালে আয়োজিত সভার কার্যক্রম শুরু হয়। পুলিশ কমিশনার কল্যাণ সভার প্রারম্ভে বিভিন্ন ইউনিটে কর্মরত সকল পদমর্যাদার অফিসার ও ফোর্সদের সমস্যার কথা অত্যন্ত মনোযোগ সহকারে শ্রবণ করেন। পুলিশ সদস্যদের বিভিন্ন দাবী এবং প্রত্যাশা পূরণে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য সংশ্লিষ্ট সকলকে দিক-নির্দেশনা প্রদান করেন।

এ সময় কেএমপি’র পুলিশ কমিশনার মোঃ মোজাম্মেল হক গ্রান্ড কল্যাণ সভায় উপস্থিত অফিসার ও ফোর্সদের বক্তব্য শ্রবণের পর সকলকে সালাম ও শুভেচ্ছা জানিয়ে বক্তব্য প্রদান করেন। পুলিশ কমিশনার তাঁর বক্তব্যে বলেন, “যে কোন প্রতিষ্ঠানের মূল দায়িত্ব হচ্ছে ডিসিপ্লিন মেইন্টেন করা। সেজন্য কেএমপির সকল পদ-মর্যাদার পুলিশ অফিসার ও ফোর্সকে অবশ্যই ডিসিপ্লিন মেনে চলার, সঠিকভাবে ইউনিফর্ম পরিধান এবং উত্তম টার্নআউট মেনে চলার নির্দেশ প্রদান করেন। পাশাপাশি ক্লথিং স্টোর, রেশন স্টোর ও অস্ত্রাগার’র ইনচার্জদের কে গুরুত্বপূর্ণ নির্দেশনা প্রদান করেন। মাদকের ব্যাপারে জিরো টলারেন্স এবং পুলিশের কোন সদস্য প্রত্যক্ষ-পরোক্ষ ও পারিপার্শ্বিক কোনো ভাবে মাদক বা জুয়ার সাথে জড়িয়ে না যায় সে ব্যাপারে বাহিনীর সকলকে সর্তক করেন এবং কেউ জড়িত থাকলে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে হুশিয়ারি প্রদান করেন। ডিসিপ্লিন বাহিনী হিসেবে সকলকে ডিসিপ্লিন মেনে চলা এবং সরকারি যানবহন যথাযথ ব্যবহার করাসহ ডিউটি শেষে যানবাহন পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখার নির্দেশ প্রদান করেন। সকল পুলিশ সদস্যদের উন্নত মানের রেশন সামগ্রী বিতরণের প্রতিশ্রুতি দেন। পুলিশ লাইন্স, থানা ফাঁড়ি, ক্যাম্পের অস্ত্র গুলির হেফাজত পরিপূর্ণ সততা, স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতার সাথে দায়িত্ব পালন করতে হবে। এক্ষেত্রে কোন ব্যত্যয় যেন না ঘটে এ   নিশ্চিত করার জন্য উর্ধ্বতন সকল কর্মকর্তাকে নির্দেশনা প্রদান করেন।

পুলিশ লাইন্স, থানা ফাঁড়ি, ক্যাম্পের পরিস্কার পরিচ্ছন্নতার ব্যাপারে সবাইকে উদ্বুদ্ধ করেন তিনি। কেএমপির সকল অফিসে ব্যবহৃত কম্পিউটার এবং ইলেকট্রনিক সামগ্রী ব্যবহারে আরো যত্নশীল হতে হবে ও সুন্দরভাবে রক্ষণাবেক্ষণ করার নির্দেশনা প্রদান করেন। মহানগরীর সকল পুলিশ ইউনিট কর্তৃক উদ্ধার কৃত ভিকটিমদেরকে ‘ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারের’ মাধ্যমে হস্তান্তর নির্দেশনা প্রদান করেন। যথাযথ নিয়ম মেনে পুলিশ সদস্যদের কে রাস্তায় মোটরসাইকেল চালানোর জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়। সনাতন ধর্মালম্বীদের অসন্ন শারদীয় দুর্গাপূজায় আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে সকলকে সতর্ক থাকার পরামর্শ দেন, পাশাপাশি পূজায় মহালয়া হতে শুরু করে বিজয়া দশমীতে প্রতিমার বিসর্জন পর্যন্ত যেন কোন ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনার সৃষ্টি না হয় সেদিন সে দিকে সর্বোচ্চ সজাগ থাকার নির্দেশ প্রদান করেন।

সবশেষে পুলিশ কমিশনার তার বক্তব্যে হ্যালো কেএমপি অ্যাপস্ ব্যবহারের জন্য প্রচার-প্রচারণা করতে নির্দেশনা দেন। তিনি কেএমপি’র আগামীতে সততা, স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতার সঙ্গে সুন্দরভাবে দায়িত্ব পালনের মাধ্যমে ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করার অভিব্যাক্তি ব্যক্ত করে খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশের আভিযানিক সাফল্যে এবং সর্বপরি ডিসিপ্লিনে সন্তোষ প্রকাশ করেন। কেএমপিকে একটি জনবান্ধব বসবাসযোগ্য নগরীতে পরিণত করার করার এবং চলমান অভিযান অব্যাহত রাখার প্রত্যয় ব্যক্ত করে উপস্থিত সকলকে ধন্যবাদ জানিয়ে তার গুরুত্বপূর্ণ দিকনির্দেশনামূলক বক্তব্য সমাপ্ত করেন

সভা শেষে পুলিশ কমিশনার কেএমপি হতে বার্ধক্যজনিত ও স্বেচ্ছায় অবসরপ্রাপ্ত ৪ জন পুলিশ সদস্য এএসআই সঃ মো: আয়ুব আলী গাজী; কনস্টেবল মোঃ নুরুল ইসলাম; কনস্টেবল মোঃ জাকির হোসেন এবং কনস্টেবল মোঃ আবতাব উদ্দিন মিয়া’দেরকে ফুলেল শুভেচ্ছা, ক্রেস্ট ও উপহার প্রদান করেন।

উক্ত গ্রান্ড কল্যাণ সভায় কেএমপি’র অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ক্রাইম) মোঃ সাজিদ হোসেন; অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক এন্ড প্রটোকল)  মোছাঃ তাসলিমা খাতুন; ডেপুটি পুলিশ কমিশনার (উত্তর) মোল্লা জাহাঙ্গীর হোসেন; ডেপুটি পুলিশ কমিশনার (সদর) মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন; বিশেষ পুলিশ সুপার (সিটিএসবি)  রাশিদা বেগম, পিপিএম-সেবা; ডেপুটি পুলিশ কমিশনার (ডিবি)  বি.এম নুরুজ্জামান, বিপিএম; ডেপুটি পুলিশ কমিশনার (লজিস্টিকস অ্যান্ড সাপ্লাই) এম.এম শাকিলুজ্জামান; ডেপুটি পুলিশ কমিশনার (দক্ষিণ) মোহাম্মদ তাজুল ইসলাম; ডেপুটি পুলিশ কমিশনার (ইএন্ডডি) মোঃ কামরুল ইসলাম; ডেপুটি পুলিশ কমিশনার (এফএন্ডবি) শেখ মনিরুজ্জামান মিঠু; ডেপুটি পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক)  মনিরা সুলতানা; ডেপুটি পুলিশ কমিশনার (আরসিডি) শাহরিয়ার মোহাম্মদ মিয়াজী এবং বিভাগীয় পুলিশ হাসপাতাল খুলনার ভারপ্রাপ্ত তত্ত্বাবধায়ক জনাব ডা: সৈয়দ একেএমএন করিম-সহ অতিঃ ডেপুটি পুলিশ কমিশনারবৃন্দ, সহকারি পুলিশ কমিশনারবৃন্দ, অফিসার ইনচার্জবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০  
© স্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২৩ নিউজ ওয়াচ বিডি
প্রযুক্তি সহায়তায় Shakil IT Park